দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ছাত্রলীগ নেতার আত্মহত্যা

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ছাত্রলীগ নেতার আত্মহত্যা

অপরাধ ও বিচার দিনাজপুর প্রতিদিন দিনাজপুরের খবর

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ছাত্রলীগ নেতার আত্মহত্যা

দিনাজপুর চিরিরবন্দরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ছাত্রলীগ নেতা ডালমোহন (৩০)। বুধবার বিকেলে ভিয়াইল ইউনিয়নের পূর্ব সুরইল শাহা পাড়া এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বেকারত্ব ও অর্থনৈতিক হতাশায় আত্মহত্যা করেছে বলে ধারনা করছেন পরিবার।

ডালমোহন সুরইল এলাকার প্রফুল্ল রায়ের ছেলে। তিনি ভিয়াইল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ছিলেন। পরিবার জানিয়েছে, ডালমোহন দূর্গাডাঙ্গা বাজারে হার্ডওয়ারের ব্যাবসা করতেন। কিন্তু গ্রাম্য এলাকায় দোকান বেচাকেনা কম হওয়ায় ব্যাবসায় লোকশান গুনতে হয় এবং এক পর্যায়ে ব্যাবসা ছেড়ে বেকার ও হতাশাগ্রস্থ্য জীবন কাটান ডালমন।

ডালমনের স্ত্রী ও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গতকাল তার স্ত্রীকে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। রাতের খাবার খেয়ে নিজ শয়নক্ষে ঘুমোতে যান ডালমন।

আজ বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ঘুম থেকে না উঠায় পরিবারের লোকজন ডাক দিতে গেলে কোন প্রকার সাড়া শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করলে ঘরের কোঠার সঙ্গে ডালমনের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।

চিরিরবন্দর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ছাত্রলীগ নেতার আত্মহত্যা

আত্মহত্যা বা আত্মহনন (ইংরেজি: Suicide) হচ্ছে কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ইচ্ছাকৃতভাবে নিজের জীবন বিসর্জন দেয়া বা স্বেচ্ছায় নিজের প্রাণনাশের প্রক্রিয়াবিশেষ। ল্যাটিন ভাষায় সুই সেইডেয়ার থেকে আত্মহত্যা শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে নিজেকে হত্যা করা। যখন কেউ আত্মহত্যা করেন, তখন জনগণ এ প্রক্রিয়াকে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করে।

ডাক্তার বা চিকিৎসকগণ আত্মহত্যার চেষ্টা করাকে মানসিক অবসাদজনিত গুরুতর উপসর্গ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন। ইতোমধ্যেই বিশ্বের অনেক দেশেই আত্মহত্যার প্রচেষ্টাকে এক ধরনের অপরাধরূপে ঘোষণা করা হয়েছে।অনেক ধর্মেই আত্মহত্যাকে পাপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যিনি নিজেই নিজের জীবন প্রাণ বিনাশ করেন, তিনি – আত্মঘাতক, আত্মঘাতী বা আত্মঘাতিকা, আত্মঘাতিনীরূপে সমাজে পরিচিত হন।

প্রতিবছর প্রায় দশ লক্ষ মানুষ আত্মহত্যা করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-এর মতে প্রতি বছর সারা বিশ্বে যে সব কারণে মানুষের মৃত্যু ঘটে তার মধ্যে আত্মহত্যা ত্রয়োদশতম প্রধান কারণ।কিশোর-কিশোরী আর যাদের বয়স পঁয়ত্রিশ বছরের নিচে, তাদের মৃত্যুর প্রধান কারণ হচ্ছে আত্মহত্যা। নারীদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে আত্মহত্যার হার অনেক বেশি। পুরুষদের আত্মহত্যা করার প্রবণতা নারীদের তুলনায় তিন থেকে চার গুণ।

Dinajpur Today Facebook Page and Group

Leave a Reply

Your email address will not be published.