দিনাজপুরের হাকিমপুর ও বিরামপুরে উপজেলা কঠোর লকডাউনের আহ্বান

দিনাজপুরের হাকিমপুর ও বিরামপুরে উপজেলা কঠোর লকডাউনের আহ্বান

দিনাজপুর প্রতিদিন দিনাজপুরের খবর

দিনাজপুরের হাকিমপুর ও বিরামপুরে উপজেলা কঠোর লকডাউনের আহ্বান

দিনাজপুর জেলার সীমান্তবর্তী হাকিমপুর ও বিরামপুর উপজেলার ৩২ কিঃমিঃ সীমান্ত এলাকার মধ্যে ১২ কিঃমিঃ তার কাটার বেড়া না থাকায় ভারত বাংলাদেশ নাগরিকদের অবৈধপথে যাতায়াত রোধ না হওয়ায় এই ২টি উপজেলায় হঠাৎ করে করোনা বেড়ে গেছে। ২টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারসহ ২২ জন করোনা পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে।

 

দিনাজপুর বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শ্যামল কুমার রায় জানান, বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ডেডিকেটেড নয়, উপরোন্ত ডাক্তার-নার্স হয় ১৪ জন করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় কিছুটা ভেঙ্গে পড়েছে চিকিৎসা ব্যবস্থা। ফলে করোনায় পজিটিভ রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হচ্ছে। তিনি জানান, আজ বৃহস্পতিবার ৫০ জনের করোনা পরীক্ষায় ৪২ জনের শরীরে পজিটিভ পাওয়া গেছে।

 

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ১৫৮ জনের করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এই উপজেলায় ২২ কিঃমিঃ সীমান্ত এলাকা রয়েছে। এরমধ্যে ৮ কিঃমিঃ সীমান্তে কোন তার কাটার বেড়া না থাকায় এবং সীমান্তের নো-ম্যান্স ল্যান্ডে জনবসতী থাকায় বাংলাদেশ ভারতের নাগরিকরা পারাপার বন্ধ করা সম্ভব না হওয়ায় ভারতীয় করোনা ভাইরাস ভেরিয়েস ঠেকানো সম্ভব হচ্ছে না।

 

বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিমল কুমার সরকার জানান, বিরামপুর ও হাকিমপুর উপজেলায় করোনা সংক্রমনের ভয়াবহতা রোধে মাস্ক বাধ্যতা মূলক ব্যবহার ও স্বাস্থ্য বিধি মানার উপর জোর দিয়েও করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে এই ২টি উপজেলায় কঠোর লকডাউন ঘোষনার জন্য আজ বৃহস্পতিবার দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালিদ মোহাম্মদ জাকিকে অবহিত করা হয়েছে।

 

এদিকে হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ জানান, হাকিমপুর স্থলবন্দর অভ্যান্তরে ভারতী থেকে আমদানী করা পণ্যবাহী ট্রাক ড্রাইভার ও হেলপারদের সাথে দেশী শ্রমিকদের পণ্য খালাস করছে। এভাবে জনসাধারনের মাঝে আরোপকৃত সরকারী বিধি নিষেধ পালন না করায় ও সীমান্তবর্তী গ্রামগুলোত অসচেতন ভাবে বাংলাদেশ ভারতের যাতায়াতের কারনে ভারতীয় করোনা ভাইরাস এদেশ জনসধারনের শরীরে প্রবেশ করছে।

 

আজ বৃহস্পতিবার হাকিমপুর উপজেলায় ৮২ জনের শরীরে করোনা পরীক্ষা করে ৪৮ জনের পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে ৮ জন হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মী। গত ১০ দিনে হিলি সীমান্তে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের ফলে এই এলাকায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ডেল্টার আশংকায় হাকিমপুরবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

 

তিনি বলেন, হাকিমপুর হিলি স্থলবন্দরে আবাসিক হোটেল এমএম লজ, কেপিলা লজ, আবাসিক হোটেল নুরজাহান ও বিরামপুরে ৩টি আবাসিক হোটেলে ভারত থেকে বাংলাদেশ আসা ২৫৮ জন যাত্রী এখনো হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। ফলে বিভিন্ন কারনে এই ২টি উপজেলায় তিনি কঠোর লকডাউন দেয়ার আহ্বান জানান। একই মতবাদ ব্যাক্ত করেন হাকিমপুর পৌরসভার মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত। তিনি বলেন, সীমান্তবর্তী ২টি উপজেলা হাকিমপুর ও বিরামপুরকে করোনার ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পেতে কঠোর লকডাউন দিয়ে স্বাস্থ্য বিধি মানাতে না পারলে এ পরিস্থিতি পাশ্ববর্তী উপজেলাগুলোতেও ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দিনাজপুরের হাকিমপুর ও বিরামপুরে উপজেলা কঠোর লকডাউনের আহ্বান

DinajpurToday

Leave a Reply

Your email address will not be published.